সুন্দর শিক্ষনীয় গল্প। অনুপ্রেরণা মূলক গল্প। 2 amazing new Motivational story in bengali.

Spread the love

প্রতিদিনের এই নিরাশাময় জীবনে একটু অনুপ্রেরণা জোগাতে, আপনাদের জন্য আজ দুটি সুন্দর শিক্ষনীয় গল্প নিয়ে আসা হয়েছে। এই অনুপ্রেরণা মূলক গল্প দুটিতে ভিন্ন ভিন্ন শিক্ষা দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে।

সুন্দর শিক্ষনীয় গল্প। অনুপ্রেরণা মূলক গল্পঃ-

সুন্দর শিক্ষনীয় গল্প- 1

গৌরব পড়াশোনায় বেশ ভালই, কিন্তু তার সমস্যা হল সে একটুতেই রেগে যায়। তাই অনেক সহপাঠীর সাথেই তার মাঝে-মধ্যেই ঝগড়া লেগে যায়। মতের অনৈক্য হলেই ঝগড়া বাঁধাতে দেড়ি হয় না তার।

সেদিন তার বন্ধু তাকে বলল- আয়তনের দিক থেকে বাংলাদেশ নাকি ভারতের তুলনায় বড়। কিন্তু গৌরব এটি মানতে নারাজ। কারণ সে তার ভূগোল বইয়ে পড়েছে যে, ভারতবর্ষ বাংলাদেশের তুলনায় প্রায় ২২ গুণ বড়। কিন্তু তার বন্ধু নিজের সিদ্ধান্তে অটল।

এরপরেই শুরু হয় দুই বন্ধুর মধ্যে কথা কাটাকাটি। সেই কথা কাটাকাটি লড়ায়েই পরিণত হতে বেশি সময় লাগল না। নাছোড়বান্দা গৌরবের বন্ধু কিছুতেই স্বীকার করছে না যে, ভারতবর্ষ বাংলাদেশের তুলনায় বড়। তার এক বাংলাদেশী কাকা নাকি তাকে বলেছে, বাংলাদেশ ভারতের তুলনায় আয়তনে অনেক অনেক বড়।

গৌরব রেগে গিয়ে বন্ধুর গালে থাপ্পড় বসিয়ে দেয়। গৌরবের বন্ধুও পাল্টা আক্রমণ করে। এদিকে লড়াইয়ের খবর পৌছে গেছে, শিক্ষকের কাছে।

শিক্ষক দুইজনের বক্তব্য ভালো ভাবে শুনলেন। এরপর তিনি গৌরবকে শাস্তি দিলেন। বললেন- “তোমাকে ক্লাসের বাইরে ১৫ মিনিট কান ধরে দাড়িয়ে থাকতে হবে।” গৌরব ভেবেছিল তার সেই বন্ধুও শাস্তি পাবে। কিন্তু গৌরব অবাক হয়ে গেল। কারণ শিক্ষক গৌরবের বন্ধুকে শাস্তি তো দূরের কথা, একটা বকাও দিলেন না।

সুন্দর শিক্ষনীয় গল্প
সুন্দর শিক্ষনীয় গল্প

আশ্চর্য, সে ভুল উত্তর দিয়ে মারামারি করল আর তাকে কোনো শাস্তি দেওয়া হল না! এ কেমন একরোখা বিচার! শিক্ষকও হয়ত জানেন না যে, ভারতবর্ষ বাংলাদেশের তুলনায় ২২ গুণ বড়! গৌরব রাগে ফুঁসতে থাকে।

স্কুল ছুটি হওয়ার পর, শিক্ষক গৌরবকে ডাকলেন। গৌরব রাগে গজগজ করতে করতে শিক্ষকের কাছে গেল। এরপর সে শিক্ষকের যে কথা গুলি শুনল তাতে মুহূর্তের মধ্যে তার সব রাগ ঠাণ্ডা হয়ে গেল।

শিক্ষক বললেন- “গৌরব তোমাকে আমি শাস্তি দিয়েছি লড়াই করার জন্য নয়। আমি শাস্তি দিয়েছি এটা ভেবে, তুমি জান যে, ভারতবর্ষ বাংলাদেশের থেকে বড়। কিন্তু তোমার বন্ধু যখন এটি স্বীকার করল না, তোমার তার কথাটাই মেনে নেওয়া উচিত ছিল। গায়ের শক্তি দেখিয়ে সত্য বদলানো যায় না। শান্ত থাকাই একজন সেরার পরিচয়। তুমি যদি স্বীকার করে নিতে বাংলাদেশ ভারতের থেকে আয়তনে বড় তাহলে তোমাকে শাস্তি পেতে হত না। কারণ একজন সেরা ব্যক্তি কখনো লড়াইের দিকে যায় না। যখন সে দেখে অন্য কেউ সত্য স্বীকার করছে না, সে সেই অসত্যটাকেই মেনে নেয়। কারণ সে ভালোভাবে জানে যে, তর্ক করা মূর্খের কাজ। আর তর্ক করে সত্য কখনো বদলায় না।

যখন তার মনে হয় সে ঠিক, অন্যরা যত কিছুই বলুক না কেন, সে মুচকি হেঁসে সেখান থেকে চলে আসে। আর মহৎ মানুষের এটাই একটা শুভ গুণ।

পড়ুনঃ- শিক্ষণীয় গল্প- পৃথিবীর সবথেকে শ্রেষ্ঠ ধর্ম

সুন্দর শিক্ষনীয় গল্প- 2:- জীবনের জলছবি-

মধ্যমগ্ৰামের একটি পাবলিক বাস। উপচে পড়া ভীড়। তিল ধারণেও জায়গা নেই। তবে মাঝে একটা স্টপেজে বেশ অনেক যাত্রী তাদের গন্তব্যে নেমে পড়ল। বাসটা আবার অনেকটা ফাঁকা হয়ে গেল। কিছুক্ষণ পর দুই হাতে বড়ো বড়ো সবজি ভর্তি ব্যাগ নিয়ে ময়লা পোষাক, ঘামে ভিজে যাওয়া একজন কালো ব্যক্তি ছুটতে ছুটতে এসে হাত বাড়ালো এবং বাসে উঠে পড়ল।

বাসটাও তখন ফাঁকা হাইওয়ে দিয়ে এক ফুরফুরে হাওয়ার মধ্যে এগোচ্ছিল। কিন্তু এত সুখের মধ্যে একটা বিরাট কাঁটা হয়ে দাঁড়াল, সেই সবজিওয়ালাটি। সে লক্ষ্য করছে, সে বাসে ওঠার পর থেকেই বাসের বেশিরভাগ যাত্রী তার পাশ থেকে অস্বাভাবিক ভাবে সরে যাচ্ছে এবং বসে থাকা যাত্রীরা তাকে নিজেদের পাশের সিটে বসতে দিতে ইতস্তত বোধ করছে। একজন যাত্রীর পাশে দূরত্ব বজায় রেখে সেই ব্যক্তি বসলেও তার সহযাত্রীটি তৎক্ষণাৎ নাক সিঁটকিয়ে অন্য একটা সিটে জানালার ধারে বসে যায়। আবার আরেকজন যাত্রী তো তার পাশের সিটে বসার জন্য সেই ব্যক্তিকে না বসতে দিয়ে তার পাশে থাকা একজন লোককে সেখানে বসতে দেওয়ার জন্য জোরাজুরি করতে লাগল!

অনুপ্রেরণা মূলক গল্প onuprerna mulok golpo
অনুপ্রেরণা মূলক গল্প onuprerna mulok golpo

না, এতকিছুর পরে কেউই থাকতে পারে না সেখানে। মাত্র ছয়টা স্টপ পার হওয়ার পরই সেই সবজিওয়ালা টিকিট নিয়ে বাস থেকে নেমে গেল। বাসটি আবার আগের মতো ফুরফুরে হাওয়ায় চলতে লাগলো। এবার কোনো আপদ বা বাধা ছাড়াই।

পড়ুনঃ- অসাধারণ দুটি শিক্ষণীয় গল্প

এই ঘটনার পর ছয় বছর কেটে গেছে। দিনটা ছিল দুপুরবেলা। হাইওয়ে দিয়ে মধ্যমগ্ৰামের একটা বাস উপচে পড়া যাত্রী নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিল। মাঝে একটা স্টপ। সেই স্টপেই বেশিরভাগ যাত্রী তাদের গন্তব্যে নেমে পড়ে। বাসটি অচিরেই খালি হয়ে যাচ্ছিল, কিন্তু ঠিক সেই সময়ে অসংখ্য জনগণের ভিড় ঠেলে বাসে উঠে পড়েন কালোরঙের টাই গলায়, শার্ট প্যান্ট, বুট পরে থাকা এক ভদ্রলোক। না, ইনি শুধু ভদ্রলোকই নন, ইনি সেই ছয় বছর আগের এক মধ্যাহ্নে চলন্ত বাসে অপমানিত হওয়া সবজিওয়ালা! সময়ের সাথে সাথে জীবনের চাকাও ঘুরে যায়।

হয়ত তার অধ্যবসায় এবং ভাগ্য তার পাশে ছিল বলেই তিনি আজ সবজিওয়ালা থেকে একজন বড় রিসার্চার এবং ভারতরত্ন প্রাপ্ত দেশের সর্বশ্রেষ্ঠ ডাক্তার। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় ছিল এটাই যে দিন তার ঘর্মাক্ত দেহ ও গা ঘিনঘিনে ঘামে ভেজা ময়লা জামাকাপড় এবং সবজির ব্যাগ দেখে সহযাত্রীরা সরে গিয়েছিল, আজ এইসব গিরগিটির মতো মানুষের ভিড়ই শুধুমাত্র তাঁকে উদ্দেশ্য করে হয়েছে। কিন্তু সেই মানুষটির মনে কোনো বিকারই লক্ষ্য করা গেল না। তিনি জানেন মানুষদের প্রকৃত পরিচয়।

মিষ্টির চারপাশে অনেক মাছিই ভনভন করতে থাকে। তাই তিনি জনগণের ফোলা ফাঁপা প্রশংসায় না থেকে, বাসের শেষ সীটে বসে পড়লেন। আজকে অবশ্য বাসের সহযাত্রীরাও তার পাশে বসার জন্য ইচ্ছাপ্রকাশ করছিল, কিন্তু তিনি কোনোকিছুকে পাত্তা না দিয়ে তার সামনে দাঁড়িয়ে থাকা কালো, ময়লা জামাকাপড় পরা রাজমিস্ত্রীকে ডেকে এনে তার পাশে বসালেন, রাজমিস্ত্রী অনেক ইতস্তত করা সত্ত্বেও। কিন্তু তবুও বড়মাপের মানুষ টি বুঝিয়ে দেন তার কাছে সেই গরীব রাজমিস্ত্রী, বন্ধুর চেয়েও অনেক বড় কেউ। তারা দুজনেই বাকি রাস্তাটা একসাথে সফর করলেন অনেক কথোপকথন করে। বাসটি আবার চলতে শুরু করল ফুরফুরে হাওয়ার মধ্যে। বাসের পিছনে ধুলো উড়ছে। পিছনে ছিল সেইসব জনগণ, যাদের কে সেই ধুলো এক অন্ধকার জগতে ঢেকে ফেলেছিল!

motivational story in bengali
motivational story in bengali

এই পৃথিবীতে মানুষের মধ্যে যতই ফারাক থাকুক না কেন, সবাই আসলে একটি চেইনে বাঁধা। একজন সবজি বিক্রেতা যদি সবজি না বিক্রি করে, তাহলে তথাকথিত ধনীদের কড়াই গরম হবে না। একজন মিস্ত্রি যদি তথাকথিত শিক্ষিত দের ঘড় তৈরি না করে, সেই তথাকথিত শিক্ষিত ব্যক্তিটি তার শিক্ষার ভাঁড় দিয়ে ঘড় তৈরি করতে পাড়বে না!

সময় বয়ে চলে নদীর স্রোতের ন্যায়। আজ যিনি একজন নামী ব্যক্তি গতকাল হয়ত তিনি ছিলেন একজন সামান্য ব্যক্তি। মানুষের প্রকৃত শিক্ষা হল সেই শিক্ষা, যা মানুষকে শুধু ইনকামের পথ দেখায় না, তার সাথে সাথে মনুষ্যত্বের বীজ বপন করে। কিন্তু সেই বীজ যদি আপনি আপনার মধ্যে না পুঁতেন, আপনার শুধু শিক্ষা বহন করাটাই সার হবে, শিক্ষাকে আর কোনোদিনও বাহন করতে পাড়বেন না। তাই মানুষের পরিচয় হয়ে উঠুক মানুষের প্রতি সহানুভূতি, ভালোবাসা প্রদর্শনের মাধ্যমে, কোনো গরীব বা অবহেলিতকে অবহেলা করে নয়!

প্রেরক- শুভেন্দু গোস্বামী

‘জীবনের জলছবি‘ শীর্ষক গল্পটি পূর্ণতা পেয়েছে যার কলমে-
যে লেখা গুলি না পড়লে মিস করবেন- 

সেরা দুটি শিক্ষণীয় ঘটনা

গৌতম বুদ্ধের ৭৫+ টি জীবন বদলে দেওয়া বাণী
আপনার লেখা আমাদের পাঠাতে পারেন- [email protected] এই মেইল ঠিকানায়।
আমাদের সাথে যুক্ত হবেন যেভাবেঃ- 

ফেসবুক- গল্প Junction

ফেসবুক- ছাড়পত্র


টেলিগ্রাম- CharpatraOfficial

WhatsApp- ছাড়পত্র (২)

“সুন্দর শিক্ষনীয় গল্প। অনুপ্রেরণা মূলক গল্প। motivational story in bengali”


Spread the love

Leave a Reply

Ads Blocker Image Powered by Code Help Pro

Ads Blocker Detected!!!

মনে হচ্ছে আপনি Ad blocker ব্যবহার করছেন। অনুগ্রহ করে  Ad blocker টি disable করে আবার চেষ্টা করুন।

ছাড়পত্র