Spread the love

আজ দুটি শিক্ষণীয় ঈশপের গল্প নিয়ে আসা হয়েছে। এই চালাক শিয়ালের গল্প দুটির মাধ্যমে যে বার্তা সবার কাছে পৌঁছে দেওয়ার প্রয়াস করা হয়েছে, তা পাঠক গল্প দুটি পড়ার পরেই অনুধাবন করতে পারবেন।

চালাক শিয়ালের গল্প। শিক্ষনীয় ঈশপের গল্পঃ-

শিক্ষনীয় ঈশপের গল্পঃ-

কোনো এক জঙ্গলে এক শিয়াল আর এক বুনো-বিড়াল বসবাস করত। তাদের দুইজনের মধ্যে বন্ধুত্ব ছিল অনেক গভীর। এক সাথে খাবার খাওয়া, এক সাথে ঘুরতে যাওয়া, এক সাথে বসে গপ্পো করা মানে এক কথায় বলা যায়- ‘গলায় গলায় বন্ধুত্ব’ যাকে বলে আরকি!

তবে, বন্ধুত্ব যতই গাঢ হোক না কেন, তাদের গল্পের মাঝে শিয়াল সর্বদা চাইত তার পাল্লা যেন না কমে। সে সর্বদা নিজেকে শ্রেষ্ঠ প্রমাণ করার তাগাদায় লেগে থাকত। শেয়ালের এই স্বভাব বুনো-বিড়ালের খারাপ লাগলেও বন্ধুত্বের খাতিরে সে ওই সব কথার উত্তর দেয় না।

এই ভাবেই কাটতে থাকে দুই বন্ধুর দিন। এরকমই একদিন তারা খাবার খুঁজতে খুঁজতে অনেকটা লোকালয়ের দিকে এগিয়ে এসেছে। ঠিক লোকালয়ও বলা চলে না আরকি! তবে সেখান থেকে লোকালয় বেশ দেখা যায়। সেদিন দুপুরের খাওয়া শেষে তারা, একটি গাছের নীচে বিশ্রাম গ্রহণ করছে। এমন সময় তারা মাথা উঠিয়ে দেখল, একজন গ্রামবাসী হাতে মোটা লাঠী নিয়ে তাদের দিকেই তেড়ে আসছে।

চালাক শিয়ালের গল্প
চালাক শিয়ালের গল্প

দুই বন্ধুই নিজের জীবন বাঁচানোর জন্য মরিয়া হয়ে উঠল। বিড়ালটি বলল- “এরকম কঠিন পরিস্থিতিতে নিজের জীবন বাঁচানোর একটি উপায়ই আমার জানা আছে, আমি সেটাই অনুসরণ করব।“

বিড়ালের কথা শোনা মাত্রই শেয়ালটি হো হো করে হেঁসে উঠল। সে হাঁসতে হাঁসতে বলল। একটি উপায়! শুধুমাত্র একটি উপায়। হাঁ হাঁ হাঁ, আরে বিল্লূ ভাই, একটি উপায় দিয়ে তুমি নিজের জীবন বাঁচাতে পারবে না। অনেক অনেক উপায় জানা দরকার। এই যেমন আমাকেই দেখ না, নিজের জীবন বাঁচানোর এত্ত গুলি উপায় আমার জানা আছে যে, সারাদিন বললেও শেষ হবে না। ভাই নিজেকে আপডেট কর।  

বিড়ালটি কিছুটা থতমত খেয়ে বলল- “আমি ওই একটি উপায়তেই সিদ্ধ হস্ত ভাই! আর কোনো উপায় আমার জানা নেই। যা ভাগ্যে আছে তাইই দেখা যাবে ভাই। তবে আমি আমার সর্বত চেষ্টা চালিয়ে যাব।“

শেয়ালটি হাঁসতে হাঁসতে বলল- “হ্যাঁ হ্যাঁ তোমার মত ঘিলু কম ওয়ালা প্রাণী যে একটি উপায় শিখেছে সেটাই বড় ভাগ্য। তাছাড়াও, অন্য উপায় গুলি তোমার মাথার উপর দিয়ে বাউন্সার যাবে, হাঁ হাঁ হাঁ…!”

শেয়ালের এই কথাটি বিড়ালটির খারাপ লাগলেও, সে নিজেকে কিছুটা সামলে নিয়ে বলল- “আমি আগাগোড়া সেই একটি উপায়েই নিজেকে রক্ষা করে আসছি! এবারও আমার ভাগ্য ঈশ্বরের হাতে দিয়ে নিজের শেখা সেই উপায়টাই আমি প্রয়োগ করব।“

শেয়ালটি আবারও হাঁসতে হাঁসতে বলল- “তোমার মত বিল্লূ ভাইয়ের সেটাই ঠিক হবে, হাঁ হাঁ হাঁ…”

ইতিমধ্যে তারা দেখল যে, লোকটি অনেকটা কাছে চলে এসেছে, আর তার কাছে রয়েছে একটি হিংস্র কুকুর। যেন ধরলেই ছিঁড়ে খাবে।

বিড়াল ও শিয়াল দুই বন্ধুই নিজের জানা উপায় গুলি প্রয়োগ করার উপযুক্ত সময় এসেছে ভেবে, তৈরি হতে থাকল। বিড়ালটি অন্যান্য সময় নিজের জীবন বাঁচানোর যে উপায়টি প্রয়োগ করে আসছিল, সেটিই করল। সে দৌড়ে তার ধারালো নখের সাহায্যে একটি গাছের মগ-ডালে উঠে পড়ল। হাজার চেষ্টা করলেও, সেই লোকটি অথবা তার কুকুরটি তার লেজেরও নাগাল পাবে না।

অন্যদিকে নিজের জীবন বাঁচানোর অসংখ্য উপায় জানা, শেয়াল বাবাজীবন, ভাবতেই থাকল যে, সে কোন উপায়টা প্রয়োগ করবে। সে কখনো ভাবে এই উপায়টি প্রয়োগ করবে আবার কখনো ভাবে, অন্য উপায়গুলি ভালো হবে। এই চিন্তা করতে করতেই, লোকটির হিংস্র কুকুরটি শেয়ালটির অনেক কাছে চলে এসেছে।

অসংখ্য উপায় জানা শেয়াল, কোন উপায়টি অবলম্বন করবে তা স্থির করতে না পেরে, পালাতে চাইল কিন্তু ততক্ষণে অনেক দেড়ি করে ফেলেছে সে, হিংস্র কুকুরটি এক লাফে তার ঘাড় কামড়ে ধরল। এরপর তার সাথে যা হওয়ার তাইই হল।

লোকটি শেয়ালটিকে মেরে ঘাড়ে তুলে নিয়ে গেল, ভোজের জন্য। আর অন্যদিকে নিজের জীবন রক্ষার শুধুমাত্র একটি উপায় জানা বুনো বিড়ালটি নিজের জীবন রক্ষায় সক্ষম হল।

শিক্ষনীয় ঈশপের গল্প ishoper golpo
শিক্ষনীয় ঈশপের গল্প ishoper golpo

তাহলে বুঝলেন তো, একটি সঠিক জ্ঞান বা শিক্ষা, সেই সমস্ত ভুঁড়ি ভুঁড়ি ডিগ্রীকে বা শিক্ষাকে পিছনে ফেলে দিতে পারে যদি সেই শিক্ষা উপযুক্ত হয়। সেই শিক্ষারই বা কি মূল্য যেই শিক্ষা আপনি অর্জন করেও কাজে লাগাতে না পাড়েন!

বর্তমান যুগের অবস্থাটাও অনেকটা সেরকম। এই তো দিন কয়েক আগের ঘটনা, আমি মায়ের সাথে এক ব্যাংকে গেছি সেখানে একজনকে দেখলাম যে, একদিকে অনেক ডিগ্রীধারী, গ্র্যাজুয়েট। কিন্তু ব্যাংকে টাকা উঠানোর ফর্ম সে নিজে ভড়তে পারে না। তার সাথে প্রতিটি বিষয়ের ভুঁড়ি ভুঁড়ি নাম্বার আছে ঠিকই কিন্তু আসল শিক্ষার আঙ্গিনায় তার নাম্বার এখনও শূন্যই রয়ে গেছে।

অন্যদিকে, একটি মাধ্যমিক পাশ করা বয়স্ক ব্যক্তি অনায়াসেই সেই গ্র্যাজুয়েটের সামনে দিয়েই নিজে টাকা তোলার ফর্ম ভড়ছে! শান্তনা শুধু একটাই, ঝুড়ি বোঝাই ডিগ্রী আছে, তার ভাঁড়ে মাথা নীচে তাকানোর সুযোগ পায় না।  

শেষের কথা গুলি শুনতে কিছুটা অন্যরকম মনে হলেও, বাস্তবতা বারংবার জানান দেয় যে, “সত্য কথা তিক্ত ভীষণ, হজম করতে নাহি পারি।।“

পড়ুনঃ- সুন্দর শিক্ষণীয় গল্প 

চালাক শিয়ালের গল্পঃ-

অনেক কাল আগে একবার গরম কালে পাহাড়ি এলাকায় সব ঝরনা শুকিয়ে গেল। কাঠফাটা রোদ, গরম হাওয়া। তার ওপরে তেষ্টা মেটাবার জল পর্যন্তও নেই। সে এক ভীষণ কষ্টের দিন। পশুরা জিভ বের করে হাঁপাচ্ছে, তেষ্টায় বুকের ছাতি ফেটে যাচ্ছে। এবার বোধ হয় তেষ্টার জ্বালায় সবাই মারা পড়বে!

দুঃখের দিনে সবাই শত্ৰুতা ভুলে যায়। পশুদেরও তাই হল। তারা হিংসা ভুলে গেল। সবাই পাহাড়ের ছায়ায় বসে পরামর্শ করল। কি করা যায়। বাঁচতে তো হবে। একটা উপায় দেখতে হয়। সবাই মিলে জলের খোঁজে চলল। হাল ছাড়লে চলবে কেন?

খুঁজতে খুঁজতে শেষকালে একটা ঝারনা পাওয়া গেল। শ্যাওলা আর ছোট ছোট পাথরে তার মুখ ছোট হয়ে এসেছে। সেই ছোট্ট মুখ থেকে ঝিরঝির করে জল গড়িয়ে পড়ছে পাহাড়ের গা বেয়ে। তবু সবাই আনন্দে লাফিয়ে উঠল। বাঁচার আশা জাগল।

পশুর রাজা সিংহ বলল, “সবাই লেগে পড়ো। গর্তের মুখ বড় করতে হবে। পাহাড়ের পাথর যত শক্তই হোক ঝরনার মুখ অনেক বড় করতে হবে। দেহের ব্যথাবেদনা ভুলে সবাই কাজে লেগে পড়ো। একথা বলেই সিংহ নিজেই থাবা বসাল। কয়েকটা নুড়ি খসে পড়ল। সিংহের থাবার নখে ব্যথা করছে, তবু সে থামল না।

শেয়ালের গল্প
শেয়ালের গল্প

সবাই কাজে লেগে গেল। ঝরঝর করে মাটি পড়ছে, পাথর পড়ছে। ঝরনার জল বাড়ছে। কাজ থেমে নেই।

সেই দলে ছিল এক শেয়াল। সে কুঁড়ের বাদশা। কোন কাজ করতে চায় না। ঝরনা খোড়ার কোন কাজই সে করল না। ছায়ায় শুয়ে রইল। ভাবল, জল তো বেরোক, তারপরে দেখি কে আমায় জল খাওয়া ঠেকায়।

সূর্য পাহাড়ের কোলে ঢলে পড়ল। আঁধার হয়ে এল। সবাই গুহায় ফিরে গেল। ঠিক হল, পরদিন খুব ভোরে সবাই এখানে চলে আসবে।

পরের দিন খুব ভোরে সবাই চলে এল। সিংহ এল সবার আগে। আর শেয়াল এল সবার পরে। রোদ উঠবার অনেক পরে। সবাই এসেই কাজে লেগে গেল। শেয়াল তেমনি শুয়েই রইল।

<

এর মধ্যে হয়েছে কি, একটা কাঠবেড়াল সিংহকে বলে দিয়েছে—শেয়াল শুধু শুয়েই আছে। এতক্ষণে সিংহের নজর পড়ল। ভীষণ গর্জন করে সিংহ তেড়ে আসছে।

পড়ুনঃ- বাবাকে নিয়ে একটি শিক্ষণীয় গল্প 

বিপদ বুঝেই পেছনের দুই পায়ের মধ্যে লেজ গুটিয়ে শেয়াল কোথায় যেন হাওয়ায় মিলিয়ে গেল।

হঠাৎ পশুরা চিৎকার করে নাচতে লাগল, পশুরাজ, তরতর করে জল পড়ছে। মিষ্টি জল। সাদা ফেনায় উপচে-পড়া জল। পশুরাজও নাচতে লাগল। তারা জলের মধ্যে হুটোপাটি খাচ্ছে। অনেক দিন পরে দেহ ঠান্ডা হল।

হঠাৎ সিংহ গম্ভীর হয়ে বলল, ‘শোনো, সবাই অনেক কষ্ট করেছে, তাই ঝরনার এমন জল দিচ্ছে। কিন্তু একজন কিছুই করে নি। তাকে সবাই চিনেছে। তাকে এই ঝরনার এক ফোটা জলও খেতে দেব না। তোমারাও দেবে না।

কিন্তু পশুরাজ, ওটা ভীষণ শয়তান। অনেক কায়দা জানে। খুব বুদ্ধি। আমরা কি পারব ওকে ঠেকাতে?

‘বেশ, তাহলে আমিই ঝরনা পাহারা দেব। আজ থেকে আমি ঝরনার পাশে ওই গুহাতেই থাকব। দেখি, কেমন করে ও জল খেতে পায়। তেষ্টায় বুকের ছাতি ফেটে ও মরবে। ভেজা গায়ে সিংহ জোরে জোরে কথাগুলো বলল, পাহাড়ে ধাক্কা খেয়ে তার কথা অনেক দূর ছড়িয়ে পড়ল।

সবাই গুহায় ফিরে যাচ্ছে। পেছন থেকে তারা সিংহের কথা শুনতে পল—‘অনেক দিন শেয়ালের মাংস খাইনি। যদি ও জল খেতে আসে, তবে এবার বোধহয় শেয়ালের মাংস খেতে হবে। ছাড়াছাড়ি নেই।’

পশুরা একথা শুনে খুব খুশি হল । খুব আনন্দ হল তাদের। যাক, নিশ্চিত্ত হওয়া গেল। বড্ড বেড়েছে শেয়াল। কুঁড়ের বাদশা কোথাকার। এবার মজাটা বুঝবে। সিংহের প্রতিজ্ঞা।

বেশ কয়েকদিন কেটে গেল। শেয়াল ঝরনার পথ মাড়ায়নি। আশেপাশে কোথাও তাকে দেখা যায়নি। সবাই ভাবল, শেয়াল ভয়ে এই এলাকা ছেড়ে দূরে কোথাও পালিয়েছে। কেউ কেউ ভাবল, তেষ্টায় বুঝি শেয়াল মরেই গিয়েছে।

পড়ুনঃ- অসাধারণ দুটি মোটিভেশনাল ছোট গল্প 

কিন্তু এসব কিছুই হয়নি। একদিন দেখা গেল শেয়াল ঝরনার একটু দূরে বসে রয়েছে। সিংহ গুহার মুখে বসে সব দেখছে। ভাবছে, শেয়াল ঝরনায় জলে মুখ দিলেই ঝাঁপিয়ে পড়ব। কিন্তু না, শেয়াল ঝরনার দিকে চেয়েও দেখছে না। জল খাওয়ার কোন ইচ্ছেই তার নেই।

সিংহ দেখল, শেয়াল কালোমতো কি একটা জিনিস থেকে কি যেন খাচ্ছে আর আপনমনে হাসছে। অবাক কাণ্ড! কি খাচ্ছে শেয়াল? সিংহ আস্তে আস্তে গুহা থেকে বেরিয়ে এল। শেয়ালের পাশে বসল। শেয়াল ফিরেও দেখল না। আপন মনে খেয়ে চলেছে।

হঠাৎ সিংহের দিকে চেয়ে শেয়াল বলল, পশুরাজ, ওসব বাজে জলটল খাওয়ার কোন ইচ্ছে আমার নেই। আমি এখন থেকে মধু খেয়ে থাকব। এই মধু খাচ্ছি। অপূর্ব, আঃ কি স্বাদ ! কোথায় লাগে ঝরনার ওই বিচ্ছিরি জল? থাকগে এসব কথা।

সিংহের জিভে জল এল। কিন্তু লজ্জায় কিছু বলতে পারল না। শেয়াল আরামে আধবোজা চোখে খাচ্ছে আর হাসছে। সিংহ আর পারল না। শেষকালে বলেই ফেলল, ‘তা শেয়াল, একটু মধু দেবে নাকি?’

মৌচাক থেকে এক ফোটা মধু নিয়ে শেয়াল সিংহকে দিল। আঃ, কি সুন্দর খেতে। কোনদিন খাইনি এমন মধু। কি মিষ্টি ! সিংহ বলেই ফেলল, “বন্ধু, এত অল্প দিলে। দাও না একটু বেশি করে।”

শেয়াল লেজ নেড়ে গলা পরিষ্কার করে বলল, “হাঁ এটা ঠিক, অনেকটা না খেলে পুরো স্বাদ পাওয়া যায় না। এ মধুর যে কি স্বাদ তা জানতে হলে মুখ ভর্তি করে খেতে হবে। ঠিক কথাই বলেছেন।”

‘তাহলে, শেয়াল তুমি কি…!’ জিভ দিয়ে জল গড়িয়ে পড়ল সিংহের।

‘হাঁ পশুরাজ, আমি মোটেই কৃপণ নই। দেব বৈকি! আপনি চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ুন, আমি মৌচাক থেকে মধু আপনার মুখে ঢেলে দি!’

সিংহ চারটে থাবা তুলে চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ল। হা-করা মুখ, দাঁতগুলো বেরিয়ে আছে। আনন্দে থাবা চারটে কাঁপছে, নখগুলো এধার-ওধার নড়ছে। কাছে গিয়ে শেয়ালের মুখ শুকিয়ে গেল। কাচুমাচু হয়ে বলল, পশুরাজ, আমার ভয় করছে, বুকে উঠে মধু ঢালতে গিয়ে যদি নখের খোচা লাগে? তাহলেই হয়েছে। তার চেয়ে এক কাজ করি। আপনার থাবাগুলো ভালোভাবে বেঁধে দি। তাহলে আর ভয় থাকবে না, কেমন?

‘যা করবে তাড়াতাড়ি করো। বেশিক্ষণ দেরি করতে পারছি না। শেয়াল দৌড়ে গেল পাহাড়ের কোলে। বুনো লতা ছিড়ে আনল। বেশ শক্ত করে সিংহের থাবা চারটে বেঁধে ফেলল। সিংহ আর থাবা নাড়াতে পারছে না।

ফিক করে হেসে শেয়াল ঝরনার দিকে হাঁটা দিল। প্রাণভরে মিষ্টি ঠান্ডা জল খেল। উঠে এল ঝরনা থেকে। সিংহের পাশ দিয়ে শেয়াল বাড়ির পথে হাঁটা দিল। ফিরেও দেখল না সিংহকে ।

পড়ুনঃ- ভাই বোনের ভালোবাসা 

হঠাৎ সিংহ চিৎকার করে কেঁদে উঠল, ‘ও শেয়াল, যাচ্ছ কোথায়? আমায় ফেলে যেয়ো না, দোহাই তোমার। এমন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখলে সব পশুপাখি আমায় ঠাট্টা করবে। পশুরাজকে এমন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখলে সব পশুপাখি আমায় ঠাট্টা কারবে। পশুদের ওপরে আমার প্রভুত্বই চলে যাবে, আমি রাজা হয়ে মুখ দেখাব কেমন করে? আমার বাঁধন খুলে দাও। তুমি যত খুশি যখন খুশি ঝরনার জল খেয়ো। কেউ নিষেধ করবো না। আমি কথা দিচ্ছি। তোমার পায়ে পড়ি, তুমি যেয়ো না |

আস্তে আস্তে হাঁটতে হাঁটতে শেয়াল ভাবল—আমি যদি সিংহের বাঁধন খুলে না দি, তবে কেউ না কেউ খুলে দেবেই। এখুনি পশুরা হয়তো চলে আসবে। আর তখন পশুরাজ কি আমায় ছেড়ে দেবে? প্রতিশোধ সে নেবেই, গোটা জঙ্গল পাহাড় খুঁজে ফিরবে। আর তখন আমাকে… । উঃ, কি সাংঘাতিক ব্যাপার! তার চেয়ে ওকে বিশ্বাস করাই ভালো। এতে বাঁচলেও বাঁচতে পারি। কিন্তু বাঁধন খুলে না দিলে কেউ বাঁচাতে পারবে না।

এইসব সাতপাঁচ ভেবে শেয়াল ফিরে এল। সিংহের থাবা থেকে লতাগুলো খুলে ফেলল। বাঁধন খুলে ফেলল। বাঁধন খুলে ফেলেই মৌচাক এগিয়ে দিল সিংহের সামনে। না, সিংহ শেয়ালকে কিছু বলল না। মধু খেল। তারপরে সব পশুকে বলে দিল, এখন থেকে শেয়াল সবার মতো নিশ্চিন্তে ঝরনার জল খাবে। কেউ যেন কিছু না বলে। পশুরা মেনে নিল আদেশ। সেদিন থেকে শেয়াল হল সিংহের বন্ধু।

শেয়াল আর সিংহ তো বন্ধু হল। সিংহ বাধ্য হয়ে শেয়ালকে বন্ধু করল। নইলে, শেয়াল যদি তার বোকামির কথা অন্য পশুদের বলে দেয় ! কি লজ্জা !

এদিকে শেয়াল বুঝল, সিংহের সঙ্গে এই বন্ধুত্ব বেশিদিন টিকবে না। হাজার হলেও পশুরাজ তো ! কখন কিরকম মেজাজ থাকবে কে বলতে পারে। আগে থেকেই সাবধান হওয়া ভালো।

এইসব চিন্তা করে শেয়াল পাহাড়ের উঁচু চূড়ায় এক গুহায় থাকতে লাগল। ছেলেদের আর বউকে নিয়ে গেল উঁচু গুহায়। এখন, ওই গুহায় উঠতে হলে পাহাড়ি গাছের লতা বেয়ে উঠতে হত। শেয়াল সেই লতা কেটে দিল। আর গুহায় রেখে দিল সেই লতা। ছেলেমেয়ে কিংবা বউ কেউই পাহাড়ের চূড়া থেকে নামত না। শুধু নামত শেয়াল। শেয়াল-বউ লতা ঝুলিয়ে দিত, তাই বেয়ে শেয়াল নামত। আবার লতা তুলে নিত। শেয়াল শিকার নিয়ে ফিরে এলে বউ আবার লতা নামিয়ে দিত। খুব নিরাপদ আস্তানা। এমনি করে দিন যায়। হাজার হলেও সিংহ হল পশুরাজ। মেজাজই অন্যরকম। দিনে দিনে সিংহ সেই আগের বোকামির ঘটনা ভুলে গেল। এবার শেয়াল পড়ল বিপদে।

দুজনে একসঙ্গে শিকার করত। কিন্তু শিকারের ভালো ভালো মাংস সিংহ নিয়ে নিত, শেয়ালের জন্য পড়ে থাকত হাড়গোড়। তাছাড়া বেশি অংশই নিয়ে নিত সিংহ। সিংহের দাঁত আর থাবার দিকে তাকিয়ে শেয়াল কিছু বলত না।

শেয়াল ভাবত মজা তো মন্দ নয়। আমি প্রাণের মায়া ছেড়ে কত কষ্টে শিকারের হদিস এনে দি, পথ দেখিয়ে নিয়ে যাই ওকে। আর উনি কি করেন? একটু পেছনে সরে এসে বিদ্যুতের মতো লাফ দেন, শিকার ছটফট করে, মরে যায়। ব্যাস, আর কোন কাজ নেই। অথচ শিকারের প্রায় সবটাই ও নিয়ে নেয়। আর সহ্য করা যায় না। কিন্তু করিই বা কি। যা দাঁত আর নখ ! একবার আদর করলেই…।

শেয়াল ভাবে আর ভাবে। কুল-কিনারা পায় না। এখন আবার আর এক ফ্যাসাদ। সিংহকে শিকারের খোঁজও দিতে হয় না। ঘুরে-ফিরে বেড়াতে হয় না। তাই সে দিনে দিনে ভীষণ কুড়ে হয়ে উঠল। শিকারের মাংস সিংহ বয়ে নিয়ে গুহায় যেত না। সেটাও পৌঁছে দিতে হত শেয়ালকে। শেয়াল বুঝল, এতদিনে সত্যিই সে সিংহের “ক্রীতদাস’ হয়ে গিয়েছে। ‘ক্রীতদাস”—এই কথাটা মনে আসতেই শেয়াল ঠিক করে ফেলল এবার তাকে কি করতে হবে। অনেক হয়েছে, আর নয়।

একদিন তারা একটা বুনো বাচ্চা ঘোড়া শিকার করেছে। সিংহ ঘোড়ার রক্ত চেটে শেয়ালকে বলল, ‘খুব কচি মাংস। সবটাই আমার গুহায় পৌঁছে দাও। পরে গুহায় এসো। আমাদের খাওয়ার পরে যদি কিছু বাঁচে নিয়ে যেয়ো। একথা বলেই সিংহ দুলকি চালে গুহার পথে হাঁটা দিল।

পড়ুনঃ- বাস্তব জীবনের শিক্ষণীয় গল্প 

আর নয়, এবার অন্য পথ ধরতে হবে। বড্ড বেশি বাড়াবাড়ি শুরু হয়েছে। এই না ভেবে শেয়াল সমস্ত মাংস কেটে কেটে উঁচুতে তুলল। খুব ধকল গেল। কিন্তু মনে খুব আনন্দ। সিংহের কথায় আর চলছিনা, ওকে মানবো না। দেখি না কি হয়।

রাত ভোর হয়ে এল। শেয়াল সিংহের গুহায় ফিরল না। খিদেতে, অপমানে, রাগে সিংহ চিৎকার করতে করতে গুহা থেকে বেরিয়ে এল। শেয়ালের পায়ের গন্ধ শুকে শুকে পাহাড়ের অনেক উঁচুতে উঠল। ওপরেই শেয়ালের গুহা। কিন্তু মসৃণ পাথর, ওখানে ওঠা যাবে না।

সিংহ কিছুক্ষণ ভাবল। তারপর বলল, “শেয়াল, বন্ধু, তোমার সঙ্গে কিছু কথা আছে। আমি তো তোমার অনেককালের বন্ধু। তাই, লতাটা ফেলে দাও। ওপরে উঠব। ভয় নেই বন্ধু?

শেয়ালের বউয়ের দাঁতকপাটি লেগে গেল। ছেলেমেয়ে গুহার কোণে গিয়ে ঠকঠক করে কাঁপছে। লেজ ঢুকে গিয়েছে পেছনের দু’পায়ের মধ্যে। সে এক কাণ্ড।

moral stories in bengali
moral stories in bengali

শেয়াল কিন্তু ঠোঁটের কোণে হাসছে। গলা বাড়িয়ে বলল, পশুরাজ, কি সৌভাগ্য। আপনি এসেছেন আমার গুহায়! কি আনন্দ! এখানে আজকের খাবার খেতে হবে কিন্তু! আপনি হলেন আমাদের রাজা। আমি লতা নামিয়ে দিচ্ছি। আস্তে আস্তে উঠুন। কি সৌভাগ্য আমার।

শেয়াল লতা নামিয়ে দিচ্ছে। বউ নিষেধ করতে গেল, কিন্তু দাঁতে দাঁতে এমন ঠকঠক হচ্ছে যে সে কথাই বলতে পারল না। ছেলেমেয়েরা আরও সিটিয়ে গেল।

সিংহ লতা বেয়ে উঠছে। ওপরে, আরও ওপরে। মাঝখানে সিংহ ঝুলছে, দেহ ভারী, তাড়াতাড়ি ওঠা যায় না। হঠাৎ ….. পটাং করে আওয়াজ হল। লতা গেল ছিঁড়ে। পাহাড়ের একেবারে নীচে ধপাস করে একটা আওয়াজ হল। একটু গোঙানি। তারপর সব চুপচাপ।

শেয়াল বউয়ের দিকে তাকিয়ে বলল, “লতাটা খুব পলকা। তাই না? ওটা আগেই এনে গুহায় রেখে দিয়েছিলাম হে হে হে….।।”

পড়ুনঃ- অসাধারণ দুটি উপদেশমূলক গল্প 

পৃথিবীর সবথেকে শ্রেষ্ঠ ধর্ম কি! 
আমাদের সাথে যুক্ত হবেন যেভাবে- 

ফেসবুক Group - গল্প Junction 

ফেসবুক- ছাড়পত্র

টেলিগ্রাম- charpatraOfficial

WhatsApp Group- ছাড়পত্র (২)

চালাক শিয়ালের গল্প। শিক্ষনীয় ঈশপের গল্প। শেয়ালের গল্প


Spread the love

Leave a Reply